Post Updated at 17 Aug, 2023 – 8:51 AM

রোযার নিয়ত নিয়ে অনেকের মধ্যে একটা ভুল ধারণা কাজ করে। অনেকেই মনে করেন, রোযার নিয়ত মুখে করতে হয়। সমাজে যে আরবী নিয়ত প্রচলিত আছে তা বলতে হয়, নইলে কমপক্ষে মুখে এতটুকু বলতে হয় যে, আমি আগামীকাল রোজা রাখার নিয়ত করছি। অন্যথায় নাকি রোযা সহীহ হবে না।

তাদের এ ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। রোযার জন্য মৌখিক নিয়ত জরুরি নয়; বরং অন্তরে রোযার সংকল্প করাই যথেষ্ট। এমনকি রোযার উদ্দেশ্যে সাহরী খেলেই রোযার নিয়ত হয়ে যায়। সুতরাং এ কথা ভাবার কোন সুযোগ নেই যে, মুখে রোযার নিয়ত না করলে রোযা হবে না।

বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে আরবি নিয়ত বলে প্রচলিত বাক্যগুলো পড়লে ভুলের আশংকা রয়েছে। যেহেতু আমরা আরবির অর্থ সাধারনত বুঝি না। তাই নিয়তের বাক্যের মাঝে এক শব্দের স্থলে আরেক শব্দ পড়া হলে অর্থ বিকৃতি ঘটতে পারে। যেমনঃ কেউ যদি ভুলে “নাওয়াইতুআন আসুমা” এর স্থলে ভুলে অভ্যাসগত ভাবে “নাওয়াইতুআন উসল্লি…” পড়েন তখন তার অর্থ হয়ে যাবে “আমি নামাজের নিয়ত করছি…”। অথচ তা হওয়ার কথা ছিল “আমি রোজার নিয়ত করছি”।

তাই কেউ যদি মুখে উচ্চারণ করে নিয়ত করতেই চায় তিনি বাংলায় নিয়ত করলেই তা যথেষ্ট হবে। আরবি বাক্য উচ্চারণ করে নিয়ত করার মাঝে বিশেষ কোনো ফজিলত নাই। নিয়ত সম্পর্কে প্রয়োজনীয় কিছু মাসআলা জানতে আমাদের ব্লগের এই পোস্টটি পড়তে পারেন

রেফারেন্স

  1. একটি ভুল মাসআলা – রোজার নিয়ত কি মুখে করা জরুরি? – মাসিক আলকাউসার
  2. নামাজ ও রোজার নিয়ত – প্রচলিত কিছু ভুল ধারনা
Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

- আমি মুসলিমস ডে এর কমেন্টের নীতিমালার সাথে একমত হয়ে পোস্ট করছি

সাম্প্রতিক পোস্ট সমূহ
ক্যাটাগরি সমূহ
ট্যাগ সমূহ
error: অনুগ্রহ করে লেখাটি কপি করবেন না। লিংক শেয়ার করুন। ধন্যবাদ